স্বরধ্বনি কাকে বলে? মৌলিক স্বরধ্বনি কয়টি ও কি কি?

স্বরধ্বনি কাকে বলে: যে সকল ধ্বনিসমূহ উচ্চারণ করার সময় ফুসফুস থেকে নির্গত বাতাস বাগযন্ত্রের কোথাও না কোথাও গিয়ে বাধাপ্রাপ্ত হয় না তাকে স্বরধ্বনি বলে। অর্থাৎ যে ধরনের উচ্চারণ করার সময় মুখের কোথাও বাধা পায় না তাকে স্বরধ্বনি বলে।

এখন একটি উদাহরণ দিলে আপনি এই স্বরধ্বনি উচ্চারণের বিষয়টি ভালোভাবে বুঝতে পারবেন এবং জানতে পারবেন।

আমরা যদি অ ধ্বনির উচ্চারণের কথাই বলি তাহলে এ ধ্বনির উচ্চারণ হবে স্বর + ও এই দুইটি মিলেই হয়েছে অ।

স্বরধ্বনি কাকে বলে
স্বরধ্বনি কাকে বলে?

এখন আপনি নিজেই দেখেন যে এই অ ধ্বনি উচ্চারণ করার সময় আপনার বাগযন্ত্রের কোন স্থানে বাতাস বাধা প্রাপ্ত হয়েছে কিনা। অবশ্যই এই ধ্বনির উচ্চারণের সময় বাকযন্ত্রের কোন স্থানে বাতাস বাধা প্রাপ্ত হয়নি।

তাই ধ্বনিটি অবশ্যই এটি একটি স্বরধ্বনি হবে, তবে ফুসফুস তাড়িত বাতাস কোথাও  বাধা পেতো তাহলে সেটি স্বরধ্বনি হতো না।

যে সকল ধ্বনি উচ্চারণ করার সময় ফুসফু তাড়িত বাতাস বাধা পায় সেগুলো স্বরধ্বনি হবে না।

মৌলিক স্বরধ্বনি কয়টি ও কি কি

মৌলিক স্বরধ্বনি হচ্ছে সাতটি আর সেগুলো হলো: ই, এ, অ্যা, আ, অ, ও, উ।

তাই আমরা বুঝতে পারলাম যে মৌলিক স্বরধরণী হচ্ছে সাতটি আর সেগুলো হচ্ছে এগুলো।

কিন্তু অবশ্যই অবশ্যই স্বরবর্ণ হচ্ছে ১১ টি আর এ বিষয়টি আমাদের জানতে হবে যে স্বরবর্ণ  আলাদা এবং স্বরধনি আলাদা। এখানে আলাদা বলতে তারা একদম আলাদা নয় বরং একে অপরের সাথে সম্পর্কযুক্ত কিন্তু পার্থক্য আছে।

বর্ণ সে সকল বিষয়কে বুঝায় যেসকল বিষয়ে আমরা লিখতে পারি অর্থাৎ যে সকল আমরা লিখি সে সকল হচ্ছে বর্ণ।

আর যে সকল কিছু আমরা মুখে দিয়ে উচ্চারণ করি সেগুলো হচ্ছে ধ্বনি এই ধ্বনি সমূহ মুখ দিয়ে উচ্চারণ করা যায়। 

তাই ধ্বনি আর বর্ণ একদিক থেকে একই আবার একদিক থেকে একই নয় একে অপরের থেকে আলাদা নয়। আবার আপনি যদি বলেন যে এরা একে অপরের সাথে সম্পূর্ণ মিল আছে তাও কিন্তু নয় এদের মধ্যেই একটু পার্থক্য রয়েছে।

শেষ কথা:

স্বরবর্ণ ১১টি এবং স্বরধ্বনি সাতটি স্বরবর্ণ এগারটি আমরা জানি, এখন স্বরধরনের সাতটি কি কি সেগুলো আমরা জানলাম।

এই পোস্টের মধ্যে আমি স্বরধ্বনি কাকে বলে এ বিষয়টি নিয়ে সম্পূর্ণভাবে আলোচনা করার চেষ্টা করছি। 

আর এই বিষয়টি আপনাকে ভালোভাবে বুঝানোর চেষ্টা করেছি যাতে করে আপনি এটি সহজে বুঝতে পারেন। আপনার যদি এ বিষয় সম্পর্কে আর কিছু জানার থাকে তাহলে আপনি আমাদের তা জানাতে পারেন।

আমরা সে বিষয়ে সম্পর্কে প্রথমে ধারণার অর্জন করব তারপর আপনাদেরকে তা জানাবো এবং বুঝানোর চেষ্টা করব।

আপনাদের সাহায্য করার জন্য আমরা সদা প্রস্তুত ছিলাম আছি এবং থাকব ইনশাআল্লাহ।

আরও পড়ুন: বাংলা ভাষা |  বাংলা ভাষার ইতিহাস ও ব্যবহার?

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *