সাধিত শব্দ কাকে বলে? সাধিত শব্দ কত প্রকার ও কি কি?

আমরা হয়তোবা ইতিমধ্যে মৌলিক শব্দ সম্পর্কে অবগত আছে কিন্তু সাধিত শব্দ কাকে বলে এর উত্তর কিছুটা অজানা। তাই আজকে আমরা চেষ্টা করব সাধিত শব্দের সঠিক সংজ্ঞা প্রদান করার এবং আপনাকে উদাহরণসহ ব্যাখ্যা দেওয়ার।

আমরা সকলে জানি যে মৌলিক শব্দ হচ্ছে ঐ সকল শব্দ যাদের ভাঙলে শুধুমাত্র একটিমাত্র অর্থ প্রকাশ পায়।

মৌলিক শব্দের বিপরীত অর্থ প্রকাশ করতে গেলে আমরা সাধিত শব্দের সঠিক সংজ্ঞাটি পেয়ে যায় এবং সাধিত শব্দ প্রকাশ করতে পারে।

সাধিত শব্দ কাকে বলে
সাধিত শব্দ কাকে বলে?

সাধিত শব্দ কাকে বলে: যে সকল শব্দকে বিশ্লেষণ করলে তার মধ্যে এক বা একাধিক অর্থপূর্ণ অংশ পাওয়া যায় তাকে সাধিত শব্দ বলে। অর্থাৎ সাধিত শব্দকে আমরা বিশ্লেষণ করতে গেলে বেশ কয়েকটি অর্থপূর্ণ অংশকে খুঁজে পাব।

এই সাধিত শব্দের কিছু উদাহরণ রয়েছে যেমন: পরিচালক, গরমিল, নীলাকাশ, ভাবোন্নতি ইত্যাদি।

আর ব্যাখ্যা হচ্ছে: গরমিল শব্দ থেকে আমরা বুঝতে পারি গড় একটি এবং মিল আরেকটি শব্দ এবং এর দুইটি অর্থ রয়েছে।

সাধিত শব্দ কত প্রকার ও কি কি?

সাধিত শব্দের কিছু প্রকারভেদ রয়েছে এবং এই প্রকারগুলো অনুযায়ী সাধিত শব্দগুলো বিশেষভাবে অর্থ সংযোগ করে। তাই চলুন এবার আমরা জেনে নেই সাথে শুদ্ধ শব্দ কত প্রকার ও কি কি এবং সেই সাথে উদাহরণ।

মূলত সাধিত শব্দ তিন প্রকার হয়ে থাকে, যেমন:

  • সমাস সাধিত শব্দ।
  • প্রত্যয় সাধিত শব্দ।
  • উপসর্গ সাধিত শব্দ।

এগুলো ছিল সাধিত শব্দের কিছু প্রকারভেদ এবং এই প্রকারভেদ গুলো অনুযায়ী সাধিত শব্দকে চিহ্নিত করা সম্ভব হয়।

আর সাধিত শব্দ মূলত একাধিক অর্থ প্রকাশ করে থাকে এবং অর্থগুলো বিভিন্ন ভাগে ভাগ করা সম্ভব হয়।

শেষ কথা:

সাধিত শব্দ কাকে বলে এবং সাধিত শব্দ কত প্রকার ও কি কি, এর উত্তর আজকের এই পোস্টটিতে প্রদান করা হয়েছে। আমরা আশা করি যে আপনারা আমাদের পোস্টটি পড়ার মাধ্যমে সাধিত শব্দের সঠিক সংজ্ঞা জানতে পেরেছেন।

যে সকল শব্দের একাধিক অর্থ থাকে, অর্থাৎ বিশ্লেষণ করলে একাধিক অর্থ পাওয়া যায় সেসকল শব্দ সাধিত শব্দ।

আর সারিত শব্দের কোনো প্রকার নিজস্ব গঠন থাকে না বরং এরা মৌলিক শব্দগুলো নিয়ে একত্র হয় গঠিত হয়।

সাধিত শব্দ অনেক বেশি ব্যবহার হয়ে থাকে এবং আমরা কথাবার্তা বলার সময় প্রায় সাধিত শব্দ ব্যবহার করে থাকি। উদাহরণ হিসেবে আমি যেমন বললাম “কথাবার্তা” এটি হচ্ছে একটি সাধিত শব্দ যেখানে দুটি অর্থ প্রকাশ পাবে।

সহজে সংজ্ঞা অনুযায়ী বলতে গেলে, মৌলিক শব্দ ব্যতীত প্রত্যেকটি শব্দকে সাধিত শব্দ বলা হয়।

মৌলিক শব্দ ব্যতীত প্রত্যেকটি শব্দ সাধিত শব্দের অন্তর্ভুক্ত এবং এগুলো সমাস সাধিত, প্রত্যয় সাধিত এবং উপসর্গ সাধিত হতে পারে।

আরও পড়ুন: ব্যঞ্জনধ্বনি কাকে বলে?

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *