মুহাজির অর্থ কি? মুজাহির কাকে বলে? মুজাহির কারা?

মুহাজির অর্থ কি: মুহাজির আরবি শব্দ, মুহাজির শব্দের অর্থ হচ্ছে হিজরতকারী। অর্থাৎ মুহাজিরের অর্থ অনুযায়ী বিবেচনা করে বলা যায় যে, যারা হিজরত করে তাদেরকে আমরা মুহাজির বলে থাকি। তবে ইসলামিক দৃষ্টিকোণ হতে, মুজাহিদ এর সংজ্ঞাকে একটু ভিন্ন পরিচয় দেওয়া হয়েছে।

যারা নিজ চোখে আমাদের প্রিয় নবী (স.)কে দেখে ঈমান এনেছিলেন তারা ছিলেন সাহাবী এবং সাহাবীদের পরে যারা এসেছিল তারা ছিল সাহাবায়ে কেরাম। আর সাহাবায়ে কেরাম এরপর যে সকল ব্যক্তিরা মক্কা থেকে মদিনায় হিজরত করেছিল তারা ছিল মুহাজির।

আল্লাহ তাআলার দ্বীন প্রতিষ্ঠা করার উদ্দেশ্যে অনেক সাহাবীরা বিভিন্ন দেশে ইসলাম প্রচারের জন্য ভ্রমণ করেছেন।

মুহাজির অর্থ কি
মুহাজির অর্থ কি?

আর এ ভ্রমণ করাকে আমরা হিজরত বলে দেখে থাকি এবং দ্বীন প্রতিষ্ঠা করার উদ্দেশ্যে হিজরত কারীকেও মুজাহির বলা যায়।

আবার এক হাদীস হতে বলা যায় যে, যারা আল্লাহ তায়ালার ভয় সকল পাপ ত্যাগ করে তাদেরকে মুহাজির বলা হয়।

তবে মুহাজির শব্দের প্রকৃত অর্থ হচ্ছে হিজরতকারী এবং যারা হিজরত করে তাদেরকে আমরা হিজরতকারী বলি।

মুজাহির কাকে বলে?

উপরে মুজাহির শব্দের অর্থ থেকে আমরা জানতে পারলাম যে, মুজাহির শব্দের অর্থ হচ্ছে হিজরতকারী অর্থাৎ যারা হিজরত করে।

আর মুজাহির অর্থ কি, এই প্রশ্নের উত্তর থেকে মূলত আমরা সহজে মুজাহির কাকে বলে বা মুজাহিরের সংজ্ঞা বলতে পারব।

মুজাহির কাকে বলে: অত্যাচারী কাফেরদের হাত থেকে রক্ষা পাওয়ার উদ্দেশ্যে যে সকল সাহাবীগণ মক্কা থেকে মদিনার উদ্দেশ্যে হিজরত করেছিলেন, সেই সকল হিজরতকারী সাহাবীদেরকে মুজাহির বলা হয়।

যেহেতু মুজাহির শব্দের অর্থ হচ্ছে হিজরতকারী, সেহেতু যারা হিজরত করে তাদের প্রত্যেকে মুজাহির বলা যায়।

অর্থাৎ আপনি মুজাহির এর সংজ্ঞা হিসেবে ছোট্ট একটি সংজ্ঞা মুখস্ত রাখতে পারেন এবং মুজাহির শব্দের অর্থ ও সংজ্ঞা বলতে পারেন।

যারা হিজরত করে তাদেরকে মুজাহির বলা হয় এবং এটি হচ্ছে মুজাহিরের সবচেয়ে ছোট একটি সংজ্ঞা।

হিজরত বিভিন্ন উদ্দেশ্যে হতে পারে, তবে ইসলামিক সংজ্ঞা অনুযায়ী দ্বীন প্রতিষ্ঠা করার উদ্দেশ্যে হিজরত করা ব্যক্তিকে মুজাহির বলা যায়।

মুজাহির কারা

যারা হিজরত করে তাদেরকে মুজাহির বলা হয় এবং মুজাহিরদের দায়িত্ব এতটুকুর মধ্যেই সীমাবদ্ধ হয় না।

বরং প্রকৃত মুজাহিদ কারা বা কাদেরকে মুজাহির বলব তার একটি বিশেষ সংজ্ঞা রয়েছে এবং আমাদের রাসূল (স.) তা বলে গিয়েছেন।

আল্লাহর রাসূল (স.) এরশাদ করেন, সেই মুসলিম যার জিহ্বা ও হাত হতে সকল স্ত্রী নিরাপদ এবং সেই প্রকৃত মুহাজির যে, আল্লাহ যা নিষেধ করেছেন সে তা সম্পূর্ণরূপে ত্যাগ করে। অর্থাৎ যে ব্যক্তি আল্লাহর সকল নিষেধ মান্য করে এবং দ্বীন প্রচেষ্টার উদ্দেশ্যে হিজরত করে তারা হচ্ছে মুজাহির।

অর্থাৎ আপনি আমি যদি আল্লাহ তাআলার দেওয়া সকল নিষেধ মেনে চলতে পারি তাহলে আমরা মুজাহির হতে পারব।

আর আল্লাহ তাআলার দ্বীন প্রতিষ্ঠা করার উদ্দেশ্যে হিজরত করা হচ্ছে মুজাহিরগণদের অন্য একটি বিশেষ বৈশিষ্ট্য।

আপনি মুজাহির হয়েছেন কিনা বা মুজাহির হওয়ার মতো যোগ্যতা অর্জন করছেন কিনা তা বুঝতে চাইলে। আপনি প্রথমের লক্ষ্য করুন যে, আল্লাহর দেওয়া প্রত্যেকটি নিষেধ আপনি ত্যাগ করতে পেরেছেন কিনা এবং এমনটি করতে পারলে আপনি মুজাহির এর অন্তর্ভুক্ত হয়েছেন।

আরও পড়ুন: এশার নামাজ কয় রাকাত?

Leave a Comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Scroll to Top