মহাকাব্য কাকে বলে? মহাকাব্য কত প্রকার ও কি কি?

মহাকাব্য কাকে বলে: মহাকাব্য হলো একটি বিস্তৃত গল্পধর্মী কবিতা, এতে কোন জাতির বা সংস্কৃতির বীরত্ব গাথা এবং ঘটনা ক্রমে বিস্তৃত বিবরণ পুঙ্খানুপুঙ্খভাবে তুলে ধরা হয়। মহাকাব্য হলো এমন একটি রচনা যা গল্পের মত বিস্তৃত কিন্তু আসলে একটি কবিতা।

মহাকাব্য নিয়ে মানুষের ধারণা শেষ নেই বরং এই মহাকাব্যের মধ্যে গল্প সমতুল্য সকল তথ্য উল্লেখ করা হয়।

কিন্তু ছন্দ আকারে উল্লেখ করা হয় এবং কবিতার সকল বৈশিষ্ট্য একটি মহাকাব্যের মধ্যে বিদ্যমান থাকে এবং গল্পের মতো বিস্তৃত হয়।

মহাকাব্য কাকে বলে
মহাকাব্য কাকে বলে?

অনেকের মতে আবার বলা হয় যে মহাকাব্যের মধ্যে আকাশ পাতাল স্বর্গ নরক ইত্যাদি বিষয় নিয়ে আলোচনা করা হয়। তবে আর যাই হোক মহাকাব্যের কিছু প্রকারভেদ রয়েছে আসলে আমাদেরকে এখন মহাকাব্যের এই প্রকারভেদগুলো সম্পর্কে জানতে হবে।

মহাকাব্য কত প্রকার ও কি কি?

আমরা পূর্বে যেমন বলেছিলাম যে মহাকাব্যের একটি সংজ্ঞা আছে এবং আমরা ইতিপূর্বে সে সংজ্ঞাটি উল্লেখ করেছি। কিন্তু মহাকাব্যের আবার কিছু প্রকারভেদ রয়েছে তাই চলুন আমরা খুব সাধারণভাবে এখন জেনে নেওয়ার চেষ্টা করে মহাকাব্যর প্রকারভেদ।

মহাকাব্য মূলত দুই প্রকার, যেমন:

  • জাত মহাকাব্য: বিভিন্ন জাতির ও সংস্কৃতি বীরত্ব নিয়ে এখানে আলোচনা করা হয়।
  • এবং সাহিত্যিক মহাকাব্য: সাহিত্যর মত বিভিন্ন তথ্য উপস্থাপন করা হয় এই কাব্যে।

এগুলো ছিল মহাকাব্যের কিছু প্রকারভেদ এবং এই প্রকারভেদ গুলোতে কি কি আলোচনা করা হয় তা বলা হয়েছে।

তবে বলে রাখি যে এ পর্যন্ত জাত মহাকাব্য মূলত চারটি রচনা করা হয়েছে এবং এই চারটির মধ্যে রামায়ণ অন্যতম।

আরও পড়ুন: ঋষি কাকে বলে?

Leave a Comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Scroll to Top