বাংলাদেশের জাতীয় পশুর নাম কি?

বাংলাদেশের জাতীয় পশুর নাম কি: বাংলাদেশের জাতীয় পশুর নাম হলো রয়েল বেঙ্গল টাইগার বা আমরা যাকে বাঘ বলি। পৃথিবীর মধ্যে উপস্থিতি সবচেয়ে বড় ম্যানগ্রোভ বন যার নাম হচ্ছে সুন্দরবন এখানে বাঘ পাওয়া যায়।

এই বাঘ যে শুধুমাত্র বাংলাদেশের জাতীয় পশু হিসেবে বিবেচিত তা নয় পৃথিবীর আরো ছয় থেকে সাতটি দেশে জাতীয় পশু হচ্ছে বাঘ। দক্ষিণ এশিয়া এবং পূর্ব এশিয়ার অনেক এলাকায় বাঘ পাওয়া যায় আর এনিম্যাল প্লানেট এর সমীক্ষা অনুযায়ী বাঘ হচ্ছে জনপ্রিয় প্রাণী।

বাংলাদেশের জাতীয় পশুর নাম কি
বাংলাদেশের জাতীয় পশুর নাম কি

আর বৈজ্ঞানিক শ্রেণীবিন্যাস অনুযায়ী বিবেচনা করলে বাঘ হচ্ছে প্রাণী জগতের কর্ডাটা পর্বের মধ্যে উপস্থিত একটি স্তন্যপায়ী প্রাণী।

আর এই অনুযায়ী বাঘের পরিবার হচ্ছে  শ্বাপদ, এদের পরিবার হচ্ছে ফেলিডি এবং এদের গণ এর নাম হচ্ছে প্যানথার।

এই ছিল বাংলাদেশের জাতীয় পশুর নাম কি যার উত্তর বাঘ সম্পর্কে হালকা এবং সংক্ষিপ্ত একটু বর্ণনা মাত্র।

আর আমি আশা করে যে এর মাধ্যমে আপনি কিছুটা হলেও বিষয়টি বুঝতে পেরেছেন আর আপনার প্রশ্নের উত্তর পেয়েছেন।

কেন বাঘ বাংলাদেশের জাতীয় পশু

বাংলাদেশের জাতীয় পশু হিসেবে বাঘাকে বিবেচনা করার বেশ কয়েকটি কারণ রয়েছে এবং রয়েছে কিছু বিশেষ দিক।

১৯৭৩ সালের আগে বা ১৯৭৩ সাল পর্যন্ত সিংহকে বাংলাদেশর জাতীয় পশু হিসেবে বিবেচনা করা হতো।

কিন্তু ১৯৭৩ সালে যখন পশু গণনা করা হয় তখন দেখা যায় যে বাঘের পরিমাণ তুলনামূলকভাবে অনেক কমে আসছে শুরু করেছে। আর তাই ১৯৭৩ সালে বাঘ রক্ষা করার জন্য একটি প্রোজেক্ট চালু করা হয় যার নাম সেভ টাইগার। 

আর সেই সময় বাঘ কে বাংলাদেশের জাতীয় পশু হিসেবে ঘোষণা করা হয় এবং রয়েল বেঙ্গল টাইগার উপাধি দেওয়া হয়।

বাঘকে জাতীয় পশু করা হয়  করা হয় বাঘের সর্তকতা, বুদ্ধিমত্তার, শক্তি, লালিত্য এবং ধৈর্যের কারণে।

আর বাঘ নিজের রাজ্যে থাকে, যেচে কারো সাথে লাগতে যায় না, কিন্তু তার উপর আঘাত পড়লে প্রচন্ড আক্রমণাত্মক হয়।

আর আক্রমণাত্মক হয়ে তার উপরে আসা আক্রমণকে প্রতিহত করে থাকে।

ঠিক তেমনি বাঙালিরা নিজ দেশে থাকে কাউরো দেশে ভাগ বসাতে যায় না আর নিজেদের দেশে আঘাত করলে তারা প্রচন্ড আক্রমণাত্মক হয়।

আরো পড়ুন: গরুর ঘা শুকানোর ঔষধ?

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *