পরিবেশ দূষণ কাকে বলে? পরিবেশ দূষণের কারণ, প্রতিকার, প্রভাব এবং সচেতনতা 

পরিবেশ দূষণ কাকে বলে এই বিষয়টির উপর আমরা আজকে বিস্তারিতভাবে আলোচনা করার চেষ্টা করব এই পোস্টে। শুধুমাত্র আমরা এই পোস্টে যে এই বিষয়টি নিয়ে জানার চেষ্টা করবো তা কিন্তু নয় এর সাথে আমরা পরিবেশ দূষণের কারণ প্রতিকার ও প্রভাব নিয়ে আলোচনা করব।

সেই সাথে এই পোষ্টের মধ্যে আমরা আলোচনা করব পরিবেশ দূষণ দূর করার জন্য আমরা কি কি সচেতনতা অবলম্বন করতে পারি।

যাতে করে আমরা সেই বিষয় সম্পর্কে সতর্ক থাকতে পারবো এবং আমাদের পরিবেশকে আমরা দূষণমুক্ত পরিবেশ গঠন করতে পারব।

পরিবেশ দূষণ কাকে বলে: পরিবেশের রাসায়নিক ভৌত এবং জৈবিক বৈশিষ্ট্যের যে অবাঞ্ছিত পরিবর্তনের কারণে পরিবেশে জীবের জীবনধারণ ক্ষতিগ্রস্ত হয়ে থাকে তাকে পরিবেশ দূষণ বলে।

পরিবেশ দূষণ কাকে বলে
পরিবেশ দূষণ কাকে বলে?

এই পরিবেশ দূষণ বিভিন্নভাবে এবং বিভিন্ন কারণে হয় পরিবেশের মধ্যে বিভিন্ন অপদ্রব্য মিশ্রণের কারণে পরিবেশ দূষণ হয়। আমরা প্রতিনিয়ত আমাদের পরিবেশকে বিভিন্নভাবে ধ্বংস করছি এবং পরিবেশের সাথে নিজেদের ক্ষতি করছি।

আমাদের সকলেরই উচিত পরিবেশ দূষণের কারণ সম্পর্কে জানা এবং সে সকল কারণ থেকে বেঁচে থাকা। যাতে করে আমাদের দ্বারা সেই সকল কাজ না হয় এবং আমাদের দ্বারা পরিবেশ দূষণ কম হয় পরিবেশ সংরক্ষণ বেশি হয়।

আপনি যদি পরিবেশ দূষণের কারণ জানতে পারেন তাহলে আপনি আপনার নিজেকে পরিবেশ দূষণ থেকে রক্ষা করতে পারবেন। 

 আপনার জানার জন্য আমি নিচে উল্লেখ করে দিলাম যে আসলে কি কারনে পরিবেশ দূষণ হয়ে থাকে অর্থাৎ পরিবেশ দূষণের কারণ।

পরিবেশ দূষণের কারণ

বিভিন্ন কারণে আমাদের পরিবেশ দূষণ হয়ে থাকে এবং আমরা বিভিন্ন কারণে আমাদের  পরিবেশ দূষণ করে থাকি। নিচে যে সকল কারণে পরিবেশ দূষণ হয় বা বিজয় সকল কারণে আমরা পরিবেশ দূষণ করে তা উল্লেখ করা হলো:

  • কলকারখানার মধ্যে অতিরিক্ত পরিমাণ রাসায়নিক দ্রব্যের ব্যবহার এবং সেগুলো যথাযথ সংরক্ষণ ব্যবস্থা না থাকা।
  • যেখানে সেখানে বিভিন্ন প্রকার রাসায়নিক দ্রব্য ফেলে রাখা এবং যেখানে সেখানে ময়লা ফেলা।
  • জমিতে প্রয়োজনের থেকে বেশি পরিমাণে কীটনাশক ব্যবহার করা।
  • জমিতে প্রয়োজনের থেকে বেশি পরিমাণে অন্যান্য রাসায়নিক সার ব্যবহার করা যা জমির জন্য ক্ষতিকর।
  • অতিরিক্ত পরিমাণে গাছ কাটা বা বন জঙ্গল কেটে ফেলা নতুন করে গাছ না লাগানো।
  • যানবাহনের কালো ধোয়া বা বিভিন্ন শিল্পকারখানার কালো কমানোর কোন ব্যবস্থা না করা।
  • প্রাকৃতিক সম্পদের অতিরিক্ত পরিমাণে অপচয় করা এবং অযথা প্রাকৃতিক সম্পদ ব্যবহার করা।
  • পানিতে অথবা যেখানে সেখানে ময়লা আবর্জনা পয়লা এবং রাসায়নিক দ্রব্য ফেলে পানি সহ অন্যান্য বিষয়বস্তু দূষিত করা।
  • শিল্প কারখানার বজ্র সমূহকে পানিতে বা মাটিতে বা যেখানে সেখানে ফেলে দেওয়া একটি জায়গায় সংরক্ষণ না করা।
  • পরিবেশের মধ্যে অধিক পরিমাণ জনসংখ্যার বৃদ্ধি করা এবং জমির উপর বাড়তি চাপ সৃষ্টি করা।
  • প্রাকৃতিক বন জঙ্গল পাহাড় পর্বত কেটে যেখানে সেখানে ঘরবাড়ি তৈরি করা।

এই কারণগুলো ছাড়াও আরো অনেক কারণ রয়েছে যে সকল কারণে আমাদের প্রায় পরিবেশ ক্ষতিগ্রস্ত এ বা দূষিত হয়। আশা করি আপনি বুঝতে পেরেছেন যে পরিবেশ দূষণ কি এবং কি কারণে পরিবেশ দূষিত হয়।

এতক্ষণ আমরা জানলাম পরিবেশ দূষণের কারণ আর এখন আমরা জানবো পরিবেশ দূষণের প্রতিকার।

এই সকল প্রতিকার অবলম্বন করার মাধ্যমে আমরা পরিবেশ দূষণ কিছুটা হলেও কমাতে পারবো।

পরিবেশ দূষণের প্রতিকার

আমরা মানুষ আমরা বিভিন্নভাবে আমাদের পরিবেশকে ক্ষতিগ্রস্ত করি এবং বিভিন্নভাবে আমাদের পরিবেশের ক্ষতি সাধন করি। আমাদের উচিত পরিবেশের ক্ষতি করা বাদ দিয়ে পরিবেশের উন্নয়নের কাজে নিজেকে ব্যে করা এবং পরিবেশের উন্নয়ন করা।

  • পরিবেশ দূষণ প্রতিকার করার জন্য আমাদের অবশ্যই অবশ্যই বেশি বেশি পরিমাণে গাছ লাগাতে হবে।
  • কালো ধোয়া নির্গমন কারে যানবাহনের ব্যবহার বন্ধ করতে হবে।
  • কলকারখানায় উৎপন্ন বজ্র পদার্থ সমূহকে এক জায়গায় সংরক্ষণ করতে হবে এবং সেগুলোকে ধ্বংস করতে হবে।
  • রাসায়নিক দ্রব্যের ব্যবহার কমিয়ে আনতে হবে এবং রাসায়নিক সুন্দরব্যসমূহ ব্যবহার করার পর সেগুলোকে সংরক্ষণ করতে হবে।
  • পাহাড় পর্বত কাটা যাবে না বন জঙ্গল কাটা যাবে না এগুলো সংরক্ষণ করতে হবে।
  • প্রয়োজনে যদি একটি গাছ কাটতে হয় তাহলে তার পরিবর্তে দশটি গাছ লাগাতে হবে।
  • যে সকল যানবাহন থেকে অধিক পরিমাণ নির্গত হয় সে সকল যানবাহনের ব্যবহার বন্ধ করতে হবে।
  • জমিতে বেশি পরিমাণ কীটনাশক ব্যবহার করা যাবে না প্রয়োজন অনুযায়ী কীটনাশক ব্যবহার করতে হবে। 
  • ব্যবহারিতা প্লাস্টিক এবং অন্যান্য দ্রব্যসমূহ যেগুলো পরিবেশের জন্য ক্ষতিকর সেগুলো এক জায়গায় সংরক্ষণ করতে হবে।
  • প্রাকৃতিক সম্পদ যেমন তেল গোয়ালা গ্যাস এগুলো সুষ্ঠু ব্যবহার করতে হবে অপচয় করা যাবে না।

এ সকল পদ্ধতি যদি আমরা অনুসরণ করতে পারি তাহলে আমাদের পরিবেশ দূষণমুক্ত পরিবেশ হবে। আর আমাদের পরিবেশকে দূষণমুক্ত পরিবেশ হিসেবে গঠন করার জন্য এগুলো জরুরী।

পরিবেশ দূষণের প্রভাব

এতক্ষণ পর্যন্ত আমরা জানলাম যে পরিবেশ দূষণ কাকে বলে এবং পরিবেশ দূষণ সম্পর্কে বিভিন্ন বিস্তারিত জ্ঞান ও আলোচনা। আর এখন আমরা জানতে চলেছি যে পরিবেশ দূষণ আমাদের উপর কি প্রভাব ফেলতে পারে এবং জীব কুলের উপর কি প্রভাব ফেলতে পারে।

পরিবেশ দূষণ বর্তমান সময় হচ্ছে সবচেয়ে বড় একটি সমস্যা এবং সবচেয়ে গুরুতর একটি সমস্যা যে সমস্যার ভোগান্তি আমরা সবাই।

আর এই সমস্যাটি হয়েছে ও আমাদের কারণে তাই আমাদেরকে সচেতন থাকতে হবে এবং পরিবেশ দূষণ করা থেকে বিরত থাকতে হবে।

পরিবেশ দূষণের কারণে আমাদের পরিবেশ বসবাসযোগ্য থাকবে না দূষিত পরিবেশ হবে যার কারণে ফসল ভালো হবে না।অতিরিক্ত গাছ কেটে ফেলার কারণে আমরা প্রয়োজনীয় পরিমাণ অক্সিজেন পাবনা এবং কার্বনডাই-অক্সাইড এর পরিমাণ বৃদ্ধি পাবে।

যুগলের অন্যান্য প্রাণী পরিবেশ দূষণের কারণে মারা যাবে এবং আমাদেরও পতন হবে এই পরিবেশ দূষণের কারণে।

পরিবেশ দূষণের কারণে জমিতে ফসল ভালো হবে না নদীতে মাছ হবে না পুকুরে মাছ ভালো হবে না।

আর পরিবেশ দূষণের কারণে এসিড বৃষ্টিসহ বন্যা জলাশ্বাস ভূমিকায় নদী ভাঙ্গন এসব দেখা দিবে। আবার পরিবেশ দূষণের কারণে অনেক সময় হঠাৎ বৃষ্টি দেখা দেয় আবার অনেক সময় অনাবৃষ্টি দেখা দেয় যা সত্যি ক্ষতিকর।

আরও পড়ুন: পরিবেশ সংরক্ষণ কি?

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *